লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান মৌলভী বাজার সিলেট

লওছড়া জাতীয় উদ্যানটি বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে। এটি কমল গঞ্জ উপজেলা মৌলভীবাজার জেলার ছোট্ট অঞ্চল দখল করে। ১৯ 1996৪ সালে বাংলাদেশের সরকারী জনগণ ১৯ac৪ সালের বন্যজীবন আইন অনুসারে লওচরাকে জাতীয় জাতীয় উদ্যান হিসাবে ঘোষণা করেন। এই পার্কটি গ্রীষ্মমন্ডলীয় এবং আধা-গ্রীষ্মমন্ডলীয় বন সহ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্য বিখ্যাত famous “80 দিনের মধ্যে বিশ্বজুড়ে” যখন এটি সবার কাছে পরিচিত হয়ে ওঠে। মুভি শুট এখানে।

লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের মানচিত্র এবং ভৌগলিক বিবরণ লাউয়াছড়া ১৯৯ 1996 সালে বাংলাদেশের জাতীয় উদ্যান হিসাবে ঘোষিত হয়। এটি কমলগঞ্জ উপজেলা মৌলভীবাজার জেলায় অবস্থিত। লওছড়া। এই রিজার্ভ অরণ্যটি 24 ° 19′11 ″ N থেকে 91 ° 47′1 ″ E এর মধ্যে আবিষ্কার হয় যা 12.50 হেক্টর অঞ্চল জুড়ে। এই অঞ্চলটি মূলত বিভিন্ন ছোট এবং মাঝারি ধরণের পাহাড়ের আচ্ছাদন। বিভিন্ন ধরণের বন্যপ্রাণী এবং পাখি দেখা যায়। এই অঞ্চলে রেট হুলক দেখা হয়।

লওচড়ার ইতিহাস

১৯২৫ সালে ব্রিটিশ সরকার বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী পরিচালনা করে। সময়ের সাথে সাথে, সেই গাছগুলি বড় হয়ে এই বন তৈরি করে। প্রথমবারের মতো, এই বনটি ২ 27৪০ বর্গকিলোমিটার এলাকা অর্জন করে যে সময়ে এটি ভ্যান গ্যাচ (গাছ) রিজার্ভ বন হিসাবে পরিচিত ছিল। ১৯৯ 1996 সালে বাংলাদেশের সরকারি জনগণ এটি একটি জাতীয় উদ্যান ঘোষণা করেছিলেন। বন উজাড়ের কারণে অপরিকল্পিত নগরায়ন এবং দ্রুত বর্ধমান এই অঞ্চলগুলি খাটো হয়ে যায়।

লাউয়াছড়া বনকে ভ্রমণ গাইড Guide

লাউয়াছড়া পরিদর্শন করার সময় কিছু তথ্য মাথায় রাখা উচিত। এই বনের প্রবেশ পাসওয়ার্ড প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য 20 টাকা এবং শিশুদের জন্য 10 টাকা। বিদেশী দর্শনার্থীর টিকিট 5 মার্কিন ডলার, এবং আপনার যানবাহন পার্ক করার সুবিধা রয়েছে যার জন্য আপনার 25-250 টাকার জন্য ব্যয় করতে হবে।
বাংলাদেশে জাতীয় উদ্যানগুলিও চেক করুন: বাংলাদেশের পর্যটন স্থান
রঙিন পোশাক না পরার চেষ্টা করুন, বন্য জীবন দেখতে চাইলে শান্ত থাকুন। আপনার বর্জ্য জলের বোতল, চিপস প্যাকেট এবং অন্যান্য অপচয় রোধ করে পরিবেশকে দূষিত করবেন না।

কীভাবে যাবেন লয়াচড়া জাতীয় উদ্যান

আপনি যদি লওচড়া করতে চান তবে আপনাকে শ্রীমঙ্গল ফার্স্ট দেখতে হবে। শ্রীমঙ্গল থেকে আপনি সহজেই ব্যক্তিগত গাড়ি, অটোরিকশা বা জিপে করে লাউয়াছড়া দেখতে পারবেন visit

Dhakaাকা থেকে হানিফ, শ্যামলী, সিলেট এক্সপ্রেসের মতো বেশ কয়েকটি বাস সার্ভিস সিলেট ছেড়ে যায়। মোট ব্যয় 300 থেকে 400 বিডিটি এর মধ্যে।
আপনি যদি ট্রেনটি পছন্দ করেন তবে Tuesdayাকা থেকে প্রতিদিন মঙ্গলবার পার্বত এক্সপ্রেস বাদে 40.৪০, জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস ১৪.০০ এ এবং উপবোন এক্সপ্রেস 22াকা ছেড়ে শ্রীমঙ্গল, রিসর্ট সিলহেটে ছেড়ে যাবে। শ্রীমঙ্গলে পৌঁছাতে প্রায় 4 থেকে 5 ঘন্টা সময় লাগে।

চট্টগ্রাম থেকে গেলে পাহাডিকা এক্সপ্রেস এবং উদয়ন এক্সপ্রেস পছন্দ করতে পারেন। এটির দাম 230 থেকে 600 বিডিটি পর্যন্ত।
লাউয়াছড়া বন ও রিসর্ট
জাতীয় উদ্যানের কাছে বিভিন্ন হোটেল এবং রিসর্ট পাওয়া যায়।

পর্যটকদের আকর্ষণ

লাউয়াছড়া সৌন্দর্যের বন। বিভিন্ন বন্যপ্রাণী সেখানে উপলব্ধ। লাউয়াছড়ায় উদ্ভিদের 450 প্রজাতি রয়েছে। সরীসৃপের 6 প্রজাতি। 240 প্রজাতির পাখি এবং 20 প্রজাতির স্তন্যপায়ী প্রজাতি পাওয়া যায়। বিভিন্ন ধরণের বানর, শিয়াল, বন্য কুকুর, ভালুক, বার্কিং প্রিয়, স্ন্যাকস অবশ্যই আপনাকে মনকে আনন্দিত করে তোলে। বর্ষাকালে আপনার জোঁকের বিষয়ে সতর্ক হওয়া উচিত। সম্ভব হলে স্থানীয় গাইডের সাহায্য নিন।

বাংলাদেশে জাতীয় উদ্যানগুলিও চেক করুন: বাংলাদেশের পর্যটন স্থান
ললাচড়ায় হলিউড মুভির শুটিং জুলিভারের “80 দিনের মধ্যে বিশ্বজুড়ে” বিখ্যাত বিজ্ঞান কল্পকাহিনীর গল্প দ্বারা একটি হলিউড চলচ্চিত্র তৈরি হয়েছিল। এই সিনেমার শুটিংয়ের জন্য ১৩ টি দেশের প্রায় ১৪৪ টি স্থান বেছে নেওয়া হয়েছে। এই চলচ্চিত্রের একটি অংশ এই বন বন রেল লাইনে নেওয়া হয়েছে। এই সিনেমাটি থেকে মুক্তি পাওয়ার পরে এই অঞ্চলটি বিশ্বজুড়ে পরিচয় হয়। দেখার সেরা সময় বছরের যে কোনও সময় যে কেউ লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান সিলেট দেখতে পারেন। তবে দেখার উপযুক্ত সময় অক্টোবর থেকে মার্চ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *